Total Pageviews

Its Awesome!

Thursday, August 3, 2017

 7:12 PM         No comments


 পর্নোগ্রাফিকে ‘শিল্প’ হিসেবে মেনে বেশ কয়েকটি বহুজাতিক কোম্পানির চাকরি ছেড়ে পর্নোগ্রাফি বিস্তারের পেশায় জড়ান গ্রেফতারকৃত আসামী ফুয়াদ। ২ আগস্ট বুধবার বিকেলে কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য দেন জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো: সারওয়ার বিন কাশেম।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর উত্তরা মডেল টাউন এলাকা থেকে ইন্টারনেটের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পর্নোগ্রাফি ব্যবসার মূলহোতা মো: ফুয়াদ বিন সুলতানকে গ্রেফতারের পর বুধবার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
গ্রেফতার ফুয়াদকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর সংবাদ সম্মেলনে লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো: সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে ফুয়াদ র‌্যাবকে জানায় ব্যক্তি জীবনে সে ইংরেজিতে অনার্স পর্যন্ত লেখাপড়া করে বেশ কয়েকটি বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকরি করত। কিন্তু পর্নোগ্রাফির প্রতি ঝোঁক সামলাতে না পেরে তিনি এই পেশায় জড়িয়ে পড়েন। তিনি নিজেকে পর্নোগ্রাফির একজন শিল্পী মনে করে পর্নোগ্রাফিকে শিল্প বলে মানত।
র‌্যাব-১ অধিনায়ক বলেন, পর্নোগ্রাফির সাম্রাজ্য গড়ে তুলতে সে উত্তরায় নিজের দুটি ফ্ল্যাটকে কাজে লাগায়, সেখানে অসামাজিক কার্যকলাপের আখড়া তৈরি করে। এজন্য ফ্ল্যাটে টাকার বিনিময়ে শারীরিক সম্পর্ক করার জন্য ভাড়া দিত, বিভিন্ন মেয়ে সরবরাহ করত, শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়া ছেলে মেয়েদের দৃশ্য গোপনে ভিডিও ক্যামেরার মাধ্যমে ধারণ করে তাদের ব্ল্যাকমেইল করত এবং তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করত।
র‍্যাব আরও জানায়, ২০১৪ সালের দিকে তিনি ইন্টারনেটের ব্যবসা শুরু করেন। এ সময়ে তিনি বিভিন্ন পর্নোসাইটে বিচরণ করেন। পরে ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে দুটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তিনি পর্নোগ্রাফির ব্যবসা শুরু করেন। এই দুটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তিনি বিভিন্নভাবে সংগৃহীত মেয়েদের আপত্তিকর ছবি, মোবাইল নম্বর এবং দৈহিক মিলনের বিনিময়ে নির্ধারিত মূল্য উল্লেখ করে বিভিন্নজনকে আকৃষ্ট করত, বিভিন্ন ওয়েবসাইটে পর্নো বিজ্ঞাপন ও দেহ ব্যবসার বিজ্ঞাপন দিত ফুয়াদ। সে ছাত্রাবস্থা থেকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে অনেক মেয়ের সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন করে প্রতারণা করত।
গ্রেফতারের সময় আসামি কাছে পাইরেটেড সিডি ও পর্নোগ্রাফি বিস্তারের কাজে ব্যবহৃত একটি ল্যাপটপ, ওয়েবক্যাম ও যৌন উদ্দীপনা বৃদ্ধির জন্য ব্যবহৃত ইয়াবা উদ্ধার করা হয় বলেও জানায় র‌্যাব।
ফুয়াদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো: সারওয়ার বিন কাশেম।
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive