Total Pageviews

Its Awesome!

Saturday, July 8, 2017

 9:04 PM         No comments
তাকদির বিষয়ে বিতর্কে লিপ্ত হওয়া উচিত নয়। তাকদিরের ওপর ঈমান রাখা আবশ্যক। এ সম্পর্কে বিতর্কে লিপ্ত হওয়া নিরাপদও নয়। বরং এ বিতর্ক অনেক ক্ষেত্রে কুফরি ও নাস্তিকতা পর্যন্ত পৌঁছে দেয়। হাদিসে এরূপ বিতর্কে লিপ্ত হওয়ার ব্যাপারে রাসুল (সা.) -এর অসন্তুষ্টির কথা বিবৃত হয়েছে। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, একবার রাসুল (সা.) বের হয়ে আমাদের কাছে এলেন। আমরা তখন তাকদির সম্পর্কে বিতর্কে লিপ্ত ছিলাম। তা দেখে রাসূলুল্লাহ্ (সা.) আমাদের ওপর এত রাগ করলেন যে, রাগে তাঁর চেহারা মুবাক লাল হয়ে গেল, যেন তার গন্ডদেশে আঙ্গারের দানা নিংড়ায়ে দেওয়া হয়েছে। তারপর তিনি বললেন, ‘তোমাদের কি এ বিষয়ে হুকুম করা হয়েছে না কি আমি এ নিয়ে তোমাদের নিকট প্রেরিত হয়েছি। তোমাদের পূর্ববর্তী লোকেরা এ বিষয়ে বিতর্কে লিপ্ত হয়ে ধ্বংস হয়ে গেছে। আমি তোমদেরকে কসম দিয়ে বলছি, আবার কসম দিয়ে বলছি, তোমরা এ বিষয়ে কখনো বিতর্কে লিপ্ত হবে না।’ [মিশকাত শরিফ, প্রথম খণ্ড, পৃষ্ঠা-২২]

অপর এক হাদিসে আছে, হজরত আয়েশা সিদ্দীকা (রা.) বলেন, ‘আমি রাসূলুল্লাহকে (সা.) বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি তাকদির সম্পর্কে আলোচনা করবে, কিয়ামতের দিন তাকে সে সম্পর্কে প্রশ্ন করা হবে। পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি এ সম্পর্কে আলোচনা করবে না তাকে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হবে না।’ [মিশকাত শরিফ, প্রথম খণ্ড, পৃষ্ঠা-২৩]
আরো বর্ণিত আছে যে, এক ব্যক্তি হজরত আলীকে (রা.) বললেন, ‘তাকদির সম্পর্কে আমাকে কিছু বলুন।’ তিনি বললেন, ‘এটা অন্ধকার পথ, এ পথে চলবে না।’ পুনরায় প্রশ্ন করা হলে তিনি বললেন, ‘এটা গভীর সমুদ্র, এতে প্রবেশ করবে না।’ আবারো প্রশ্ন করা হলে তিনি বললেন, ‘এ হলো আল্লাহর গোপন রহস্য, যা তোমার থেকে গোপন রাখা হয়েছে। সুতরাং তুমি এ নিয়ে অতিরিক্ত অনুসন্ধান করবে না।’ [দরসে মিশকাত, প্রথম খণ্ড, পৃষ্ঠা-৮৭]
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive