Total Pageviews

Its Awesome!

Saturday, July 8, 2017

 10:35 PM         No comments
img


যশোর জেনারেল হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ সাজ্জাদ কামাল এক কলেজছাত্রীর সঙ্গে অশোভন ও অচিকিৎসকসুলভ আচরণ করছেন।
ঘটনাটি শনিবার হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের মধ্যে ঘটে। এই ঘটনায় ওই ছাত্রীর অভিভাবকরা কর্তৃপক্ষের কাছে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে, শনিবার সকালে চিকিৎসকের পরামর্শে ওই কলেজছাত্রী আল্ট্রাসনো করার জন্য তার কক্ষে যান। ওই চিকিৎসক তাকে আল্ট্রাসনোর প্রস্তুতি নিতে গিয়ে উল্টো-পাল্টা প্রশ্ন করতে থাকেন। অসুস্থ কলেজছাত্রী বিবাহিত কি না তা না শুনেই ডা. সাজ্জাদ কামাল তাকে জিজ্ঞাসা করেন, ‘কইটি বাচ্চা (সন্তান) নষ্ট করেছেন?’ তখন ওই কক্ষে থাকা অন্যান্য রোগীরা তার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দেন। এসময় ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী হতভম্ব হয়ে পড়েন। 
ছাত্রী বলেন, ‘স্যার আমার বিয়েই হয়নি। এসব কথা বলছেন কেন?’
প্রত্যুত্তরে ওই চিকিৎসক বলেন, ‘না আপনার মতো বয়সের অনেকেই তো এই রকম। নানা অপকর্ম করে আল্ট্রাসনো করতে আসে তো, তাই বললাম আর কী।’ 

এ কথায় অপমানিত হয়ে কলেজছাত্রী কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে আসেন। পরে তার মাকে জানান, এই হাসপাতালে চিকিৎসা নেবেন না। তিনি মানসিভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। 
ঘটনাটি শোনার পর ওই কলেজছাত্রীর অভিভাবকরা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বিষয়টি তারা কয়েকজন সাংবাদিকের সহযোগিতায় হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক কামরুল ইসলাম বেনুর কাছে প্রাথমিকভাবে মৌখিক অভিযোগ করেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে অভিযোগ দেবেন বলে রোগীর স্বজনরা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে ফোনে ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ সাজ্জাদ কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি তিনদিনের ছুটি নিয়ে ইতোমধ্যে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছি।’ 
বাচ্চা নষ্ট করার বিষয়ে ওই রোগীকে প্রশ্ন করেছেন কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ; ওই প্রশ্ন করার পর আমি ওই রোগীর কাছে সরি বলেছি।’

এই বিষয়ে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. কামরুল ইসলাম বেনু বলেছেন, ‘বিষয়টি আমি শুনেছি। ওই চিকিৎসক ছুটি শেষে ফিরলে গুরুত্বের সাথে দেখা হবে।’
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive