Total Pageviews

Its Awesome!

Saturday, June 3, 2017

 11:18 AM         No comments
আমাদের দেশে প্রতিবন্ধী নারীদের সংখ্যা কত- সেটা নির্দিষ্ট নয়। তবে প্রতিবন্ধী নারীদের একটি বৃহৎ অংশ যে প্রতিনিয়ত অবহেলিত হয়, সে বিষয়ে কোনো দ্বিমত নেই। দেশে নারী প্রতিবন্ধীদের জন্য আলাদা করে কোনো কার্যক্রম পরিচালিত হয় না, ফলে তারা ঋতুস্রাব সম্পর্কে বিস্তর ধারণা লাভ করা থেকে বঞ্চিতই রয়ে যাচ্ছে।


এমনও হয়ে থাকে যে- কিছু ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী মেয়েদের ঋতুস্রাব বন্ধ করারও ব্যবস্থা করেন বাবা-মায়েরা। এখানেই শেষ নয়, প্রতিবন্ধী মেয়ে সন্তানটি যাতে কখনই মা হতে না পারে- সে উদ্দেশ্যে পদক্ষেপও গ্রহণ করেন বাবা-মায়েরা। পরিবার মনে করে না যে তাদের প্রতিবন্ধী কন্যার লেখাপড়ার দরকার আছে। ফলে ওই মেয়ে ঋতুস্রাব সম্পর্কে অজ্ঞই থেকে যায়।

ঋতুস্রাবের সময় স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের বিষয় থাকে। প্রতিবন্ধী নারীদের ধরণ অনুযায়ী বিশেষ ধরনের ন্যাপকিনেরও প্রয়োজন রয়েছে। একজন প্রতিবন্ধী কিশোরী, যে একেবারেই নিজে থেকে কিছু করতে পারে না, সেই সন্তানের মা অনেক কষ্টে ভোগেন। সেই মা মনে করেন- তার মেয়ের যদি ঋতুচক্র বন্ধ করে দেয়া যায় সেক্ষেত্রে ওর ওপর কোন নির্যাতন হলে সন্তানসম্ভবা হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। পাশাপাশি সমাজের চোখেও মেয়ে ছোট হবেনা। এই ভাবনা থেকে অনেক সময় ঋতুস্রাব বন্ধ করা বা জরায়ু ফেলে দেয়ার চিন্তা করা হয়। কিন্তু প্রতিবন্ধী হলেও একজন কিশোরী ভবিষ্যতে মা হতে পারেন- এটি অনেকেই চিন্তা করেন না।

তথ্যসূত্র: বিবিসি
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive