Total Pageviews

Its Awesome!

Tuesday, June 6, 2017

 3:23 PM         No comments

বিশ্ব ব্যাংক। ছবি: সংগৃহীত


চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছর শেষে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৮ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। আগামী ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৬ দশমিক ৪ শতাংশ, ২০১৮-১৯ বছরে ৬ দশমিক ৭ শতাংশ এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে তা বেড়ে আবার ৭ শতাংশে উন্নীত হবে। 
বিশ্বব্যাংকের সদ্য প্রকাশিত ‘গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্টস’ বা ‘বিশ্ব অর্থনৈতিক সম্ভাবনা’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ সব তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ থাকা সত্ত্বেও কৃষি খাতে উৎপাদন বৃদ্ধি ও সেবা খাতের কার্যক্রম জোরদার হওয়ার ফলে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত হয়েছে। তবে রফতানি ও রেমিট্যান্স জিডিপি প্রবৃদ্ধির এ চিত্র পাল্টে দিতে পারে।
প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরে দক্ষিণ এশিয়ায় কেবল ভারত ও ভুটান বাংলাদেশের সমান ৬ দশমিক ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে পারে। অন্য দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি এর চেয়ে কম হবে। বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি অবশ্য দক্ষিণ এশিয়া ও বৈশ্বিক গড় থেকে বেশি। এতে চলতি বছরে ভারত বাদে সার্বিকভাবে দক্ষিণ এশিয়ার গড় প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৭ শতাংশ ও বৈশ্বিক অর্থনীতিতে ২ দশমিক ৪ শতাংশে প্রাক্কলন করা হয়েছে।
একইভাবে প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে বৈশ্বিক অর্থনীতির চলতি প্রবণতা ও আগামী কয়েক বছরের সম্ভাবনা। এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতি স্থিতিশীল রয়েছে। কিন্তু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে মুদ্রা বিনিময় হার, রাজস্ব আহরণ ও তারল্য ব্যবস্থাপনায়। অন্যদিকে জিডিপিতে বেসরকারি বিনিয়োগের অবদানও বেড়েছে। একই সঙ্গে মূলধনি যন্ত্র আমদানি বেড়েছে।
প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম স্থিতিশীল থাকায়, রফতানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং দেশগুলোর সামষ্টিক অর্থনীতিতে ঝুঁকি কমার ফলে চলতি হিসাবের ঘাটতি ক্রমাগতভাবে সহনীয় হয়ে উঠছে। বাংলাদেশ ও ভারতে রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় কমছে, তবে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বা মজুত বেড়েছে ও মুদ্রা বিনিময় হার স্থিতিশীল রয়েছে।
কিছু ঝুঁকির বিষয় তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়, সামনের দিনগুলোয় অর্থনীতির বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ ঝুঁকি রয়েছে। অভ্যন্তরীণ ঝুঁকির মধ্য রয়েছে আর্থিক খাতের অস্থিতিশীলতা, আর্থিক খাতের সংস্কার ও ২০১৯ সালের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা। এছাড়া রফতানিতে শ্লথ গতি, রেমিট্যান্স প্রবাহে মন্দা, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে অভিভাসনে কড়াকড়ি আরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে মন্দাবস্থাও বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive