Total Pageviews

Its Awesome!

Saturday, June 3, 2017

 11:13 AM         No comments
হাইপারটেনশন উচ্চ রক্তচাপ হিসেবেই বেশি পরিচিত। যখন রক্তনালীর ভেতর দিয়ে রক্ত নিয়মিত তীব্র গতিতে প্রবাহিত হয় তখন তাকে হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ বলে। রক্তচাপ পরিমাপের কিছু সংখ্যা আমাদের জানা থাকা উচিৎ, যেমন- ১২০/৮০ হচ্ছে স্বাভাবিক রক্তচাপ, ১৩৯/৮৯ হচ্ছে প্রি হাইপারটেনশন, ১৪০/৯০ হচ্ছে হাইপারটেনশনকে নির্দেশ করে। হাইপারটেনশন আছে যাদের তারাও রক্ত দান করতে পারেন, তবে রক্তদানের সময় তার রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকতে হবে,  যাতে রক্তচাপে কোন ওঠা-নামা না হয়।



রক্তদানের সময় রক্ত দাতার সিস্টোলিক চাপ (প্রথম নাম্বারটি) ১৮০ এর নীচে এবং ডায়াস্টোলিক চাপ (দ্বিতীয় সংখাটি) ১০০ এর নীচে থাকবে।

যদি রক্তদাতা নিয়মিত ঔষধ গ্রহণ করেন তাহলেও তিনি রক্তদান করতে পারেন। কারণ রক্তচাপের ঔষধ আপনাকে রক্তদানের জন্য অযোগ্য করে না। তবে শর্ত থাকে যে, আপনার ঔষধের কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই এবং হাইপারটেনশনের সাথে সম্পর্কিত অন্য কোন রোগেও আপনি ভুগছেন না। রক্তচাপ ওঠা-নামা করলেও যারা নিয়মিত চিকিৎসা গ্রহণ করেন না তাদের রক্ত দান করা থেকে দূরে থাকা উচিৎ।

হাইপারটেনশনের রোগীদের রক্তদানের পূর্বে যে বিষয়গুলোর প্রতি যত্নবান হওয়া প্রয়োজন:

·         পর্যাপ্ত ঘুমানো

·         স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া

·         পর্যাপ্ত পানি পান করা

হাইপারটেনশনের রোগীদের রক্তদানের পরে যে বিষয়গুলোর প্রতি যত্নবান হওয়া  প্রয়োজন:

·         রক্তদানের পূর্বে ও পরে প্রচুর তরল খাবার গ্রহণ করা গুরুত্বপূর্ণ

·         আয়রন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করুন

·         ভারী কিছু ওঠানো বা তীব্র মাত্রার ব্যায়াম করা থেকে দূরে থাকুন

·         স্বাস্থ্যকর খাবার খান

·         যদি দুর্বল অনুভব করেন তাহলে শুয়ে থাকুন যতক্ষণ না ভালো অনুভব করছেন।

সবশেষে বলা যায় যে, অন্য ব্যক্তিকে রক্ত দানের জন্য রক্তদাতার স্বাস্থ্যবান হওয়া প্রয়োজন। একজন রক্তদাতার বয়স ১৮ বছর হতে হয় এবং তার ওজন অন্তত ১১০ পাউন্ড থাকতে হয় এবং গত ৫৬ দিনে তিনি রক্তদান করেননি এমন হতে হয়।

সূত্র: দ্যা হেলথ সাইট
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive