Total Pageviews

Its Awesome!

Sunday, January 8, 2017

 2:08 PM         No comments
বিশেষজ্ঞের উত্তর: মুসলিমদের জন্মদিন পালন করা সম্পর্কে দু’টি ভিন্ন মত পাওয়া যায। এরমধ্যে একটি হলো-ইসলামী শরীয়তের নির্দেশনা মেনে আল্লাহর নেয়ামতের শোকরিয়া স্বরূপ জন্মদিন পালন করা জায়েজ। যেমনটি আল্লাহর রাসুল রোজা রেখে করেছিলেন। তবে জন্মদিনকে উপলক্ষ করে গান-বাজনা, নারী-পুরুষের অবাধ মেলামেশার আয়োজন, মোমবাতি জ্বালানো কিংবা নেভানো অথবা হারাম পানীয় পান করা যাবে না। জন্মদিনে গরীবকে খাওয়ানো, যার জন্ম তাকে কিছু হাদিয়া (যেমন নতুন পোশাক, বই, টাকা ইত্যাদি) দিয়ে খুশি করা এবং আল্লাহর কাছে দোয়া ও শোকর প্রকাশ করা যেতে পারে। এমনই মত দিয়েছে মিশরের ফতোয়া বোর্ড।


আর দ্বিতীয়টি হলো- সৌদি আরবের ফতোয়া বোর্ড ও দেশটির খ্যাতনামা মুফতিদের। তারা বলেন, কোনো অবস্থাতেই জন্মদিন পালন করা যাবে না। কেননা জন্মদিন পালন করা ইহুদি নাসারাদের সংস্কৃতি। মহানবী (সা.) সাহাবারা এ ধরনের জন্মদিন পালন করেননি। নবী (সা.) বলেছেন, ‘যিনি অন্য জাতির অনুসরণ করবেন তিনি তাদের অন্তর্ভক্ত।’ অতএব বিজাতীয়দের অনুকরণে জন্মদিন পালন করা হারাম। ধন্যবাদ।
পরামর্শ দিয়েছেন:
মুহাম্মদ আমিনুল হকসহযোগী অধ্যাপক
আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি)
পিএইচডি গবেষক
কিং আব্দুল আজীজ ইউনিভার্সির্টি, জেদ্দা
সৌদি আরব।
সম্পাদনা: মাহবুব আলম
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive