Total Pageviews

Its Awesome!

Tuesday, December 24, 2013

 10:47 AM         No comments

এফএনএস: ধুম থ্রি-র ধুম জ্বরে আক্রান্ত পাকিস্তানও। আইনের ফাঁস এড়িয়ে ভারতের সীমান্তপারের শহরেও শুক্রবার মুক্তি পেল বলিউডের বিগ বাজেটের এই ছবি৷ আর প্রথম ক’দিনেই উৎসাহী দর্শকে হাউসফুল লাহোরের মাল্টিপ্লেক্সগুলি।

আমির খানের অভিনয়ের জাদু পাকিস্তান আদৌ দেখতে পাবে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছিল সেখানকার প্রতিদ্বন্দ্বী দুই মিডিয়া গ্র“পের লড়াই৷ ভারতীয় সিনেমার কারণেই মার খাচ্ছে পাকিস্তানি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি, তাই পাক চলচ্চিত্রকে বাঁচাতে সেখানে ভারতীয় সিনেমার সম্প্রচার বন্ধ করা হোক, এই মর্মে আবেদনপত্র জমা দিয়েছিলেন পাকিস্তানের একটি মিডিয়া গ্র“প। দুই প্রতিদ্বন্দ্বী গ্র“পের সমঝোতায় শেষ পর্যন্ত শুক্রবারই পাকিস্তানের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেল ‘ধুম থ্রি’।

দু’পক্ষের চুক্তিতে স্থির হয়েছে, পাকিস্তানে মুক্তি পাওয়া বলিউডি সিনেমা থেকে যে টাকা উঠবে তার একটা নির্দিষ্ট অংশ খরচ করা হবে পাকিস্তানি সিনেমার উন্নতিতে৷ দু’পক্ষের এই চুক্তিতে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলছেন প্রযোজক সারা তারিন৷ তার কথায়, ‘এতে দু’পক্ষেরই জয় হলো৷ শুক্রবার থেকেই শহরের প্রেক্ষাগৃহগুলিতে ধুম থ্রি দেখতে পাবেন এখানকার মানুষ। একই সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী, বলিউডি সিনেমার মাঝের এক একটি শোয়ে দেখানো হবে পাকিস্তানি সিনেমাও।’

Some very beautiful Wallpapers of Katrina Kaif


লাহোরের এমএম আলম রোডের ‘সুপার সিনেমা’য় ‘ধুম থ্রি’-র প্রিমিয়ারে হাজির ছিলেন তারিন৷ দর্শকদের উৎসাহ ও উচ্ছ্বাস তাকে মুগ্ধ করেছে৷ হাড়হিম করা ঠাণ্ডা ও কুয়াশার মধ্যেই টিকিট কাউন্টারের সামনে উপচে পড়ছে ভিড়। হাইপ্রোফাইল দর্শকের গাড়ির লাইনে সে দিন প্রেক্ষাগৃহের সামনে রীতিমত ট্রাফিক জ্যাম হয়ে যায়।

বেশ কয়েকটি মাল্টিপ্লেক্সের মালিক ও নামজাদা ডিস্ট্রিবিউটর নাদিম মান্ডভিওয়ালের কথায়, ‘প্রথম দিনেই ১.৯০ কোটি রুপির ব্যবসা করেছে ধুম থ্রি। আশা করি লাভের অঙ্ক ১৫ কোটিতে গিয়ে পৌঁছবে। সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় পাকিস্তানি সিনেমা ‘ওয়ার’ও প্রথম দিনে ১.১০ কোটি টাকার বেশি ব্যবসা করতে পারেনি৷ লাহোরের মাল্টিপ্লেক্সে ধুম থ্রি-র একটা শোয়ের জন্যই হাজারেরও বেশি টিকিটের অগ্রিম বুকিং হয়েছে। অবস্থা এমন জায়গায় পৌঁছেছে, সোমবার পর্যন্ত মাল্টিপ্লেক্সগুলির সব শোয়ের সব টিকিট বুকড।’

’ধুম থ্রি’-র এই সাফল্য নাদিমের মুখে হাসি ফোটালেও পাকিস্তানে এই সিনেমার মুক্তির ব্যাপারে কম কাঠখড় পোড়াতে হয়নি তাদের৷ তিনি নিজেই জানান, বলিউডি সিনেমাই পাকিস্তানের মাল্টিপ্লেক্স ও থ্রিডি সিনেমা হলগুলিকে বাঁচিয়ে রেখেছে৷ পাক সাংবাদিক উসমান গফুরের বক্তব্য, ‘দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নতি ঘটাতে সরকারি উদ্যোগেই ২০০৭ সাল থেকে পাকিস্তানের প্রেক্ষাগৃহে ভারতীয় সিনেমা দেখানো শুরু হয়৷ আর তার হাত ধরেই মাল্টিপ্লেক্সগুলোর রমরমা৷ শুধু তাই নয়, ভারতীয় সিনেমাই পাক দর্শকের মধ্যে চলচ্চিত্র সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছে।’

বলিউডি সিনেমা এখন জড়িয়ে গিয়েছে পাকিস্তানি অর্থনীতির সঙ্গে৷ বলিউডি সুপারহিটের হাত ধরেই মোটা অঙ্কের টাকা আসে পাক সরকারের ঘরে। তাই এত সহজে যে কাঁটাতারের বেড়া বলিউডি সিনেমাকে আটকাতে পারবে না, তা স্পষ্ট ভাষাতেই জানালেন উসমান।
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive