Total Pageviews

Its Awesome!

Tuesday, November 26, 2013

 7:40 PM         No comments

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদত্যাগ করেছেন। সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল করার প্রতিবাদে তিনি পদত্যাগ করেন।
একই সঙ্গে জাফর ইকবালের সহধর্মিনী, বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইফ সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ইয়াসমীন হক পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।
মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি কমিটির এক বৈঠকে ভর্তি পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিলে তিনি বিকাল সাড়ে চারটায় পদত্যাগপত্র জমা দেন।

গত ৩০ নভেম্বর যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।
জাফর ইকবালের পদত্যাগপত্র জমাদানের খবর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করতে থাকেন। শিক্ষার্থীরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা বহালের দাবিতে মিছিল বের করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘এ’ বিল্ডিংয়ের ফটকে মিলিত হচ্ছেন এবং বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও অংশ নিয়েছেন।
‘এ’ বিল্ডিংয়ের ২০৬ নম্বর কক্ষে অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, অধ্যাপক ইয়াসমিন হক, রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক মুহম্মদ ইউনুস, অধ্যাপক হিমাদ্র শেখর রায়সহ আরও অনেক শিক্ষক উপস্থিত আছেন।
এই বিষয়ে মুহম্মদ জাফর ইকবাল প্রিয়.কমকে বলেন, আমার দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন ছিল এই সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা। ভর্তি পরীক্ষার্থীদের কষ্ট দূর করতে অবশেষে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ভর্তি পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়। এই পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল করায় যবিপ্রবিকে উপেক্ষা করা হয়েছে। তাদেরকে আমি লজ্জায় মুখ দেখাব কি করে? তাই আমি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী রেজাউল করিম প্রিয়.কমকে বলেন, ‘বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে আমরা জানতে পারি জাফর ইকবাল স্যার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদত্যাগ করেছেন।’ তিনি জানান, এরপর শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন হল থেকে মিছিল বের করেন। তারা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা বহাল রাখার দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন।
শিক্ষার্থীদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করার জন্যই জাফর ইকবাল পদত্যাগ করেছেন। এই ভর্তি পরীক্ষা বহাল রাখার দাবি জানান। সেই সঙ্গে তারা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষ্ঠানে কর্নেল অলিসহ অনেকেই জাফর ইকবাল সম্পর্কে কটূক্তি করেন। তারা এসব কটূক্তির তীব্র প্রতিবাদ জানান।
উল্লেখ্য, সোমবার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবং সচেতন সিলেটবাসীর মতবিনিময় সভায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি প্রক্রিয়ায় সিলেটি শিক্ষার্থীদের জন্য ৫০ ভাগ কোটা বরাদ্দ এবং অবিলম্বে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সমন্বিত ভর্তি প্রক্রিয়া বাতিলের দাবি জানিয়েছে সচেতন সিলেটবাসী।
এসময় কর্নেল অলি আহমেদ বলেন, জাফর ইকবাল বিভিন্ন সময় জাহানার ইমামের নামে হল, ভাস্কর্য ও সিলেটের স্বার্থবিরোধী অনেক কান্ডকীর্তি করে বারবার সিলেটবাসীকে অপদস্থ করেছেন। আপনারা এই ব্যাক্তিকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের করে দিলে আমরা আনন্দ মিছিল করব।
এরপর আজ মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি কমিটি এক বৈঠকে বসে সিলেটবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তা স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেয়।
- See more at: http://www.priyo.com/2013/11/26/42603.html#sthash.DBflCzHE.dpuf
Reactions:

0 comments:

NetworkedBlogs

Popular Posts

Recent Posts

Text Widget

Blog Archive